Breaking News
Home / Abroad Life / মেক্সিকোর বিভিন্ন কারাগারে আটক বাংলাদেশি
Loading...

মেক্সিকোর বিভিন্ন কারাগারে আটক বাংলাদেশি

মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে বাংলাদেশি শ্রমিক যাওয়া দিনদিনই কমছে। মুলত অর্থনৈতিক মন্দার কারনে এ অবস্থার সৃষ্টি। এখন উন্নত জীবনের স্বপ্নে বিভোর হয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বাংলাদেশিরা পাড়ি দিচ্ছে ইউরোপ ও আমেরিকার দিকে। অবৈধভাবে মার্কিন মুলুকে প্রবেশের জন্য তারা ব্যবহার করছে আমেরিকার পার্শবর্তী দেশ মেক্সিকো। আর এ রুটে আমেরিকায় যাওয়ার সময় গত কয়েক বছরে আটক হয়েছে হাজার হাজার বাংলাদেশি। বর্তমানে তারা আটক রয়েছে মেক্সিকোর বিভিন্ন কারাগারে ।

সম্প্রতি দক্ষিণ এশিয়া থেকে মেক্সিকোয় অবৈধ অভিবাসীর সংখ্যা উদ্বেগজনক হারে বেড়েছে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক বাংলাদেশি রয়েছে। অভিবাসীদের মূল লক্ষ্য হলো সুযোগ বুঝে আমেরিকায় প্রবেশ করা। এদিকে অবৈধ এ মানবপাচারের সঙ্গে দূতাবাসের কিছু অসাধু কর্মকর্তার যোগসাজশে এ সংখ্যা আরও বাড়ছে। উন্নত ও সচ্ছল জীবনের আশ্বাস দিয়ে স্বপ্নভূমি আমেরিকায় পাঠাতে বাংলাদেশিদের কাছ থেকে দুই থেকে তিন লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে এ চক্রগুলো।

ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব মাইগ্রেশন, মেক্সিকো (আইএনএম) থেকে জানা গেছে, ২০১১ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত অবৈধ অনুপ্রবেশের দায়ে যথাক্রমে ১৪৯, ১৬৭, ৩২৮, ৬৯০, ৬৪৮, ৬৯৭ ও ১২০ বাংলাদেশি আটক হন। তারা বর্তমানে মেক্সিকোর জেলে বন্দি রয়েছে। অন্যদিকে ইউএস বর্ডার প্রটেকশন এজেন্সির হাতে গত ছয় বছরে আটক হয়েছেন দুই হাজার চারশরও বেশি বাংলাদেশি।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের আগে কয়েকটি দেশ হয়ে মেক্সিকোয় যায় বাংলাদেশিরা। কখনও কখনও ১০-১২টি দেশও পার হতে হয়। মানবপাচারের রুট হিসেবে প্রথমে বাংলাদেশ থেকে প্লেনে দুবাই,ইস্তাম্বুল বা তেহরান, এরপর ভেনিজুয়েলা, ব্রাজিল, গায়ানা ও বলিভিয়া থেকে দুর্গম পথে যাত্রা করে কলম্বিয়া-পানামা-কোস্টারিকা-নিকারাগুয়া-এল সালভাদর-গুয়াতেমালা হয়ে মেক্সিকোতে পৌঁছায় এসব বাংলাদেশি। এরপর মেক্সিকো থেকে সুযোগ বুঝে সীমানা অতিক্রম করে স্বপ্নের দেশ যুক্তরাষ্ট্রে পৌঁছানোর চেষ্টা করে বাংলাদেশিরা। আর এসব দুর্গম পথ পাড়ি দিতে গিয়ে অনেকেই মারা যায়।

Loading...

মার্কিন সীমান্তরক্ষী বাহিনী ১৯৯০ সাল থেকে এ পর্যন্ত ছয় হাজারেরও বেশি মরদেহ উদ্ধার করেছে এসব পথ থেকে। তবে এর মধ্যে কতজন বাংলাদেশি, তা সুনির্দিষ্ট করে বলতে পারেনি তারা। ভুক্তভোগীরা জানান, যুক্তরাষ্ট্রে যেতে আগ্রহীদের জিম্মি করে মোটা অঙ্কের অর্থ আদায় করা হয়। অর্থ আদায়ের কৌশল হিসেবে অপরাধীচক্র অবৈধ অভিবাসীদের দু-একজনকে হত্যা করে বাকিদের ভয় দেখায়। মৃত্যুর ভয়ে অনেকেই তাদের স্বজনদের সঙ্গে যোগাযোগ করে টাকার সংস্থান করতে বাধ্য হয়।

মেক্সিকোর জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের হিসেব মতে, প্রতি বছর প্রায় ১০ হাজার অভিবাসী অপহরণের শিকার হয়। পরবর্তীতে মুক্তিপণের দাবিতে তাদের ওপর নির্মম নির্যাতন চালানো হয়। অনুপ্রবেশের দায়ে বিভিন্ন সময়ে মেক্সিকোতে জেলখাটা বাংলাদেশিদের সাথে কথা বলে জানা যায়, এদেশে কিছু দালাল চক্রের কারণে মূলত মেক্সিকোতে এতো বাংলাদেশি জেলে মানবেতর জীবন কাটাচ্ছে।

অনেক ভূক্তভুগি জানান, তাদের আমেরিকায় নিয়ে যাওয়ার জন্য বিভিন্ন দেশ পাড়ি দিয়ে মেক্সিকোতে নিয়ে যায়। মেক্সিকোতে পৌঁছনোর পর তাদের বলা হয় সময়-সুযোগ মতো আমেরিকায় নিয়ে যাওয়া হবে। তারা জানান, একদিকে কোন কাজ না পেয়ে টিকে থাকা দায় হয়ে পড়ে, আর অন্যদিকে অবৈধ ভাবে মেক্সিকোতে বসবাস করার জন্য প্রচুর বাংলাদেশি আটক হচ্ছে দেশটির পুলিশের কাছে । এমনকি অনেক দালাল চক্রকে ঠিক মতো টাকা না দিতে পারায় তারাই পুলিশের কাছে ধরিয়ে দিচ্ছে বাংলাদেশিদের।

এদিকে, অবৈধভাবে সীমানা অতিক্রমের সময় আমেরিকার সীমান্তরক্ষী বাহিনীর হাতে ধরা পড়ে এখন জেল খাটছেন অনেক বাংলাদেশি। আবার অনেকেই আত্মসমর্পণ করে সেদেশে অ্যাসাইলাম বা আশ্রয়ের আবেদন করেছে। সম্প্রতি বাংলাদেশিরা আমেরিকায় রাজনৈতিক আশ্রয়ের সুযোগ নিচ্ছে। তবে পরিসংখ্যান বলছে, মার্কিন অভিবাসন আদালত বাংলাদেশিদের প্রতি তেমন সদয় নয়।

২০১৫ সালের সেপ্টেম্বরের তথ্য অনুযায়ী, গত পাঁচ বছরে মাত্র ১৩ শতাংশ বাংলাদেশির আবেদন মঞ্জুর হয়েছে। ২০১৬ সালের ডিসেম্বরে ৩৮ বাংলাদেশিকে দেশে ফেরত পাঠানো হয়। তাদেরও অপরাধ ‘অনুপ্রবেশ’। এভাবে অবৈধভাবে আমেরিকায় যাওয়ার সময় প্রচুর বাংলাদেশি আটক হয়ে বন্দি জীবন কাটাচ্ছে মেক্সিকোর কারাগারে।

বাংলাদেশের কটূনৈকিত পর্যায়ে আলোচনা করে সমাধান করা প্রয়োজন বলে মনে করেন অনেক বিশেষজ্ঞ। তারা বলেন, এভাবে অন্যায় ভাবে বাংলাদেশিরা অন্য দেশের জেল বন্দি থাকতে পারে না। সরকারকে দ্রুত এ সমস্যার সমাধান করতে হবে এবং এসব বন্দিদের মুক্ত করে দেশে ফিরিয়ে নিয়ে আসতে হবে।

Loading...

Check Also

জাতিসংঘ নিহত ৩ বাংলাদেশি শান্তিরক্ষীকে সম্মাননা জানালো

কর্তব্যরত অবস্থায় নিহত বাংলাদেশের তিন জন শান্তিরক্ষীকে সম্মাননা জানিয়েছে জাতিসংঘ। বুধবার নিউইয়র্কে জাতিসংঘ সদরদপ্তরে আন্তর্জাতিক …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *