Breaking News
Home / SPORTS / অন্য রকম এক ‘ফাইনালের’ সামনে জিদান
Loading...

অন্য রকম এক ‘ফাইনালের’ সামনে জিদান

জীবনের একমাত্র ব্যালন ডি’অর পুরস্কারটি জিতেছেন জুভেন্টাস ক্লাবের হয়ে খেলার সময়ই। এর পর ক্লাব পরিবর্তনের রেকর্ড পরিমাণ ফি নিয়ে ইতালির ক্লাবটি থেকে রিয়াল মাদ্রিদে নাম লেখান ২০০১ সালে। ওই মৌসুমেই চ্যাম্পিয়নস লিগের শিরোপার স্বাদ। রিয়াল মাদ্রিদের কোচ হিসেবে চ্যাম্পিয়নস লিগের ট্রফি জিতেছেন গত মৌসুমে।

এবার তাঁর সামনে শিরোপা ধরে রাখার হাতছানি। প্রতিপক্ষ সেই জুভেন্টাস, যে ক্লাব তাঁর হৃদয়ে বিশেষ এক জায়গাজুড়ে আছে। ৩ জুন কার্ডিফের ফাইনাল নিয়ে রিয়াল মাদ্রিদ ওয়েবসাইটকে অনেক কথাই বলেছেন রিয়ালের কোচ জিনেদিন জিদান।

জিনেদিন জিদানকে প্রশ্ন: এখন পর্যন্ত কোনো দলই টানা দুবার চ্যাম্পিয়নস লিগ জিততে পারেনি। এটা কি বাড়তি প্রেরণা জোগাচ্ছে?

জিনেদিন জিদান: না, তা নয়। আরেকটি চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনাল খেলছি, এটাই প্রেরণার বড় উৎস। এটা আমাদের জন্য দারুণ ব্যাপার। কঠিন এক ফাইনাল হবে। কঠিন পরিশ্রম করতে হবে। আমরা তৈরি থাকব।

প্রশ্ন: কার্ডিফের ফাইনালকে মিলানে অ্যাটলেটিকোর বিপক্ষে ফাইনালের অভিজ্ঞতার সঙ্গে তুলনা করা যায়। সেই ম্যাচ থেকে নেওয়া কোন শিক্ষা এবারের ফাইনালে রিয়ালকে সাহায্য করতে পারে?

জিদান: প্রতিটি ফাইনালই আলাদা। আলাদা স্টেডিয়াম আর আবহে ভিন্ন একটা দলের বিপক্ষে আরেকটা ফাইনাল। আমরা জানি, জয়ের জন্য আমাদের হাতে ৯০ মিনিট থাকবে। অথবা আরও বেশি (অতিরিক্ত সময়ে গড়ালে আরও ৩০ মিনিট)। আমরা এর মধ্যেই জিততে চেষ্টা করব। অন্য যেকোনো সময়ের মতো শতভাগ উজাড় করে দেব। আমরা আমাদের খেলার ধরন বদলাব না। এরপর দেখি কী হয়।

প্রশ্ন: ২০১৬ সালের গোড়ার দিকে দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে রিয়ালে আপনার সময়টাকে কীভাবে বিশ্লেষণ করবেন? দল থেকে সেরাটা কীভাবে আদায় করে নেন?

জিদান: রিয়াল মাদ্রিদের কোচ হতে পেরে আমি খুশি। সহজ কোনো কাজ নয় এটা। তবে এটা আমার ভালোবাসা। আমি কঠিন পরিশ্রম করেছি। তিন-চার বছর ধরে পরিশ্রম করে নিজেকে কোচ হওয়ার জন্য তৈরি করেছি। তবে আমরা এখন পর্যন্ত যা অর্জন করেছি সেটা দলে থাকা অসাধারণ খেলোয়াড়দের কারণেই।

প্রশ্ন: বর্তমান চ্যাম্পিয়ন। এটা কি রিয়ালের জন্য এবারের টুর্নামেন্টটা কঠিন করে দিয়েছে?

জিদান: হ্যাঁ, এটা সব সময়ই হয়। অন্য দলগুলো যখন রিয়াল মাদ্রিদের বিপক্ষে খেলে, এটাকে মৌসুমে তাদের সবচেয়ে বড় ম্যাচ হিসেবে নেয়। এটা আমরা জানি, আর এতে অভ্যস্তও। এই ক্লাবের অংশ হতে পারাটা যে কী, সেটা আমরা জানি। আর এটাই হয়তো ফাইনালগুলোয় যাওয়া কঠিন করে দেয়।

Loading...

প্রশ্ন: জুভেন্টাসের শক্তির জায়গা কী? এই প্রতিপক্ষকে আপনি কীভাবে নিচ্ছেন?

জিদান: দারুণ একটি মৌসুম কাটছে ওদের। আমি তাদের শক্তি বা দুর্বলতা নিয়ে কথা বলব না। আমরা সবাই জানি তারা দারুণ একটি দল। এর প্রমাণও তারা দিয়েছে। ফাইনাল খেলার যোগ্য দুই দলের মধ্যে অসাধারণ একটি ম্যাচ হবে।

প্রশ্ন: জুভেন্টাসের বিপক্ষে খেলতে হচ্ছে। তা-ও আবার ফাইনালে। এটাকে আপনি কীভাবে নিচ্ছেন?

জিদান: আমার জন্য এটা বিশেষ এক ম্যাচ। পাঁচটি বছর আমি জুভেন্টাসে কাটিয়েছি। অসাধারণ এক ক্লাব। একজন মানুষ আর খেলোয়াড় হিসেবে আমাকে বেড়ে উঠতে সাহায্য করেছে। আমার হৃদয়ে জুভেন্টাসের জন্য সব সময়ই বিশেষ জায়গা থাকবে। কিন্তু ম্যাচটি শুরু হতে না হতেই আমি প্রতিপক্ষ দলের। আমি রিয়াল মাদ্রিদের। আর আমি শুধু আমার দল নিয়েই ভাবব।

প্রশ্ন: ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো আর তাঁর বদল নিয়ে কথা বলতে চাই। শুধু মাঠের পজিশন নিয়েই নয়, তাঁর খেলা ম্যাচের সংখ্যা নিয়েও। এই বদলটা কীভাবে হয়েছে? যৌথ সিদ্ধান্তে?

জিদান: হ্যাঁ, অবশ্যই তাই। আমরা মিলেমিশেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আমরা আলোচনা করেছি আর তার ওপর ভিত্তি করেই সিদ্ধান্তটি নেওয়া হয়েছে। আমাদের বুদ্ধিদীপ্ত হতে হবে, তারও কখনো কখনো একটু কম খেলা উচিত। এমন নয় যে সে শারীরিক দিক থেকে ফিট নয়। এটা এই কারণে যে মৌসুমের শেষ দিকে আমরা যখন সব শিরোপা জয়ের কাছাকাছি থাকব, সেই সময় যাতে সে সেরা ফর্মে থাকতে পারে। এ বছর সে অনেক খেলেছে। তবে কখনো কখনো তাকে বিশ্রাম দেওয়া হয়েছে। এখন সে দারুণ অবস্থায় আছে।

প্রশ্ন: চ্যাম্পিয়নস লিগে নবম শিরোপা জয়ের পথে গ্লাসগোতে আপনার গোলের ১৫ বছর পূর্তি ছিল ১৫ মে। সেই ফাইনালের কী মনে আছে?

জিদান: এটা ছিল স্পেশাল। কারণ তখন পর্যন্ত আমার না জেতা একমাত্র শিরোপা ছিল চ্যাম্পিয়নস লিগ। আর সেদিন আমি রিয়ালের জার্সি গায়ে চ্যাম্পিয়নস লিগ জিতেছি। সেটাও অসাধারণ একটি গোল করে। অসাধারণ এক পাস দিয়েছিল রবার্তো কার্লোস। দারুণ স্মৃতি!

প্রশ্ন: আর কোনো ফাইনালে এমন গোল কেউ করতে পারবে বলে মনে হয়?

জিদান: আশা করি, অনেক খেলোয়াড়েরই এমন একটি গোল করার সুযোগ আসবে। বিশেষ করে চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালে। চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালে করার কারণেই গোলটি বিশেষ হয়ে গিয়েছিল। আশা করি, ভবিষ্যতে অন্যরাও এমন স্বাদ পাবে। আমি তো চাই ৩ জুন আমার কোনো খেলোয়াড়ই এমন একটি গোল করার আনন্দে ভাসবে।

Loading...

Check Also

মুস্তাফিজ

বাংলাদেশের ক্রিকেটকে বদলে দিয়েছে মুস্তাফিজ

অভিষেকেপ পর থেকেই বাংলাদেশের ক্রিকেট আকাশে মঙ্গলতারা হয়ে দেখা দিয়েছেন মুস্তাফিজুর রহমান। দেশের মাটিতে ধারাবাহিক …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *