Breaking News
Home / Abroad Life / জাতিসংঘ নিহত ৩ বাংলাদেশি শান্তিরক্ষীকে সম্মাননা জানালো
Loading...

জাতিসংঘ নিহত ৩ বাংলাদেশি শান্তিরক্ষীকে সম্মাননা জানালো

কর্তব্যরত অবস্থায় নিহত বাংলাদেশের তিন জন শান্তিরক্ষীকে সম্মাননা জানিয়েছে জাতিসংঘ। বুধবার নিউইয়র্কে জাতিসংঘ সদরদপ্তরে আন্তর্জাতিক শান্তিরক্ষী দিবস উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সর্বোচ্চ ত্যাগের জন্য তাদের ‘দ্যাগ হ্যামারশোল্ড মেডেল’ প্রদান করা হয়।

নিহত বাংলাদেশি শান্তিরক্ষীসহ বিশ্বের ৪৩টি দেশের ১১৭ জন আত্মোৎসর্গকারী শান্তিরক্ষী কর্মীকেও এই সম্মাননা দেওয়া হয়েছে। জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেজ বাংলাদেশসহ ৪৩টি দেশের স্থায়ী প্রতিনিধিদের হাতে মেডেল তুলে দেন। জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী মিশন থেকে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

উল্লেখ্য জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমের মালি মিশনে কর্তব্যরত অবস্থায় ২০১৬ সালের ১৩ অক্টোবর নিহত হন বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সৈনিক মো আবুল বাসার এবং একই মিশনে কর্তব্যরত বাংলাদেশ পুলিশের কনস্টেবল মোতাহের হোসেন ও মো সামিদুল ইসলাম ২০১৬ সালের ১৫ মে নিহত হন।

Loading...

বাংলাদেশের পক্ষ থেকে মেডেল গ্রহণ করেন জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন। বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনের ডিফেন্স অ্যাডভাইজর ব্রিগেডিয়ার জেনারেল খান ফিরোজ আহমেদসহ জাতিসংঘে কর্মরত বাংলাদেশ সেনা, নৌ, বিমান ও পুলিশ বাহিনীর কর্মকর্তাগণ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

আন্তর্জাতিক শান্তিরক্ষী দিবস উপলক্ষে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানের শুরুতেই মহাসচিব গুতেরেজ কর্তব্যরত অবস্থায় জীবনদানকারী সামরিক ও বেসামরিক শান্তিরক্ষী কর্মীদের স্মরণে জাতিসংঘ সদরদপ্তরের উত্তর লনে অবস্থিত পিসকিপিং মেমোরিয়াল সাইটে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন।

অনুষ্ঠানে জাতিসংঘ মহাসচিব বলেন, “আজ যাঁদেরকে আমরা সম্মান জানালাম তাঁরা পৃথিবীর সবচেয়ে দুর্দশাগ্রস্ত মানুষগুলোকে রক্ষা এবং সেসব দেশকে সংঘাত থেকে শান্তিতে উত্তরণের মতো কঠিন কাজে সহযোগিতা করতে গিয়ে জীবন দিয়েছেন।” এর আগে আত্মদানকারী শান্তিরক্ষীদের প্রতি সম্মান জানিয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।

উল্লেখ্য জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে ১৯৮৯ সাল থেকে এ পর্যন্ত কর্তব্যরত অবস্থায় বাংলাদেশের ১৩৩ জন শান্তিরক্ষী মৃত্যুবরণ করেছেন।

Loading...

Check Also

মেক্সিকোর বিভিন্ন কারাগারে আটক বাংলাদেশি

মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে বাংলাদেশি শ্রমিক যাওয়া দিনদিনই কমছে। মুলত অর্থনৈতিক মন্দার কারনে এ অবস্থার সৃষ্টি। এখন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *